Home চট্টগ্রাম “বাবা” আমাকে বাঁচাও এই ডাক এখনো কানে বাজে।

“বাবা” আমাকে বাঁচাও এই ডাক এখনো কানে বাজে।

27

প্রতিনিধি,  মোঃ মাজাহারুল ইসলাম,কোমলমতী শিশু রাফিয়া খান। বয়স মাত্র আড়াই বৎসর। গলার ব্যাথা নিয়ে তার বাবাকে বলেছিল,”বাবা” আমাকে বাঁচাও। বাবা ও তার অতি আদরের মেয়েকে চিকিৎসা দিতে দ্রুত ভর্তি করেন চট্টগ্রামের ম্যাক্স হাসপাতালে। ভেবেছিলেন তার মেয়ে দ্রুত সুস্থ হয়ে যাবে। কিন্তু বুঝতে পারেননি এই হাসপাতালের নরপিশাচ রা তার মেয়েকে সুস্থ করে তোলার পরিবর্তে পাঠিয়ে দিবে না ফেরার দেশে।আড়াই বৎসর বয়সের এই শিশু টি আনন্দ উল্লাসে মাতিয়ে রাখত পুরো পরিবার সহ আশপাশের এলাকা। যে বয়স টি খেলাধুলার, যে বয়স টি আনন্দ উল্লাসের সে সময় তাকে পাড়ি দিতে হল না ফেরার দেশে। শুধু মাত্র ডাক্তার নামক এই সকল নরপিশাচ কসাইদের জন্য।হয়ত রাফিয়ার বাবা একজন সাংবাদিক বলে অকালে ঝড়ে পড়া নিষ্পাপ শিশু রাফিয়ার মৃত্যুর যথাযত বিচার ও শাস্তির দাবিতে আজ ঢাকা ও চট্টগ্রামের সকল সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ প্রতিবাদ করেছেন চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সামনে । হয়ত বিচার পাবে কিন্তু ফিরিয়ে দিতে পারবে কেউ রাফিয়ার জীবন ? এ ভাবে প্রতি নিয়ত যে কত বাবা মায়ের কোল খালি করছে এই সকল নরপিশাচ কসাইরা তা আমাদের সকলের অজানা।আর যাতে কোন পিতা মাতার কোল খালি না হয়। আর যেন কোন শিশু এভাবে অকালে ঝরে না যায়।এই রকম সকল কসাইখানা গুলোকে সিলগালা করা ও ডাক্তার নামের কশাইদের দ্রুত আইনের আওতায় আনা এখন সময়ের দাবী।