বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম ইউনিভার্সিটির জন্য চসিক কালভার্ট ও রাস্তা নির্মাণ...

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম ইউনিভার্সিটির জন্য চসিক কালভার্ট ও রাস্তা নির্মাণ করবে।।

34
SHARE

প্রতিনিধি, মোঃ হাসান মুরাদ, চট্টগ্রামের চান্দগাঁও ওয়ার্ড কালুরঘাট ভারী শিল্প এলাকার হামিদচরে নির্মিত হতে যাচ্ছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম ইউনিভার্সিটি। ১০৬ একর জায়গার উপর ৯৬৯ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হতে  যাচ্ছে এই বিশ্ববিদ্যালয়। ইতোমধ্যে প্রকল্পের ডিপিপি অনুমোদনের জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। ডিপিপি অনুমোদিত হলেই প্রকল্পের প্রথম ধাপের কাজ শুরু হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন প্রকল্প বাস্তবায়নকারী সংস্থা। আগামী ২০২১ সাল নাগাদ প্রথম ধাপের কাজ সম্পন্নের মেয়াদ নির্ধারণ করা হয়েছে। এই বিশ্ববিদ্যালয়ে নদী,উপকূলীয় ও মহাসাগরীয় আইন এবং প্রকৌশলের উপর ৭টি অনুষদের অধীনে ৩৮টি বিভাগ খোলার পরিকল্পনা রয়েছে।  তবে ২০১৩ সালে ঢাকার মিরপুর পল্লবীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্থায়ী ক্যাম্পাস স্থাপনের মধ্য দিয়ে এর আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রকল্প বাস্তবায়ন বিষয়ে আজ সকালে চান্দগাঁওস্থ কালুরঘাট ভারী শিল্প এলাকার হাজী সাবের আহমেদ কন্টেইনার ইয়ার্ড লি.সংলগ্ন স্থানে এলাকাবাসীর অংশগ্রহণে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মত বিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিটি মেয়র বলেন, এই বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হলে শুধু চট্টগ্রাম নয় বাংলাদেশের ভাবমূর্তিও বিশ্বের কাছে নতুন রূপ লাভ করবে। এই প্রতিষ্ঠানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শিক্ষার্থীরা অধ্যয়ন করবে।মেরিটাইম বৈষয়িক বিভিন্ন দেশের শিক্ষকরা এখানে ক্লাস করাবেন। বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঐকান্তিকতা সদিচ্ছার জন্য তিনি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।  তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় নির্মাণে সহায়ক অংশগ্রহণ হিসেবে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে প্রকল্প সংলগ্ন খালে একটি কালভার্ট ও শিল্প এলাকার সড়কটির আধুনিকায়ন করা হবে। সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সাংসদ মঈন উদ্দিন খান বাদল এমপি বলেছেন, সারা পৃথিবীতে মাত্র ১২টি মেরিটাইম বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। এখন বাংলাদেশ এই সংখ্যায় নতুন যুক্ত হতে যাচ্ছে। এই সাফল্য সমগ্র চান্দগাঁওবাসীর। এই সাফল্যের হাত ধরে এই এলাকায়  শিক্ষা,সংস্কৃতি,ব্যবসা, বাণিজ্যসহ নানামুখী সম্ভাবনার নতুন দুয়ার উন্মুক্ত হবে।
সভাপতির বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ’র ভাইস চ্যান্সেলর রিয়ার এডমিরাল এম খালেদ ইকবাল বলেন, মেরিটাইম ক্ষেত্রে সুদুর প্রসারী সম্ভাবনা ও উন্নয়নের কথা বিবেচনায় রেখে বর্তমান সরকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম ইউনিভার্সিটি সময়োপযোগী ভূমিকা রাখবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সম্প্রতি এই বিশ্ববিদ্যালয় নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়নে ব্যাপারে অনুমতি প্রদান করেছেন।বিশ্ববিদ্যালয়টি  প্রতিষ্ঠিত হলে মেরিটাইম বিষয়ে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত ও দক্ষ জনবল তৈরিতে বাংলাদেশ বিশ্ব দরবারে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবে। ইতোমধ্যে জনবল কাঠামো আবেদনের বিপরীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য ৭৮৭জন শিক্ষক নিয়োগের অনুমোদন পাওয়া গেছে। এই বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে মেরিটাইম ক্ষেত্রে সমগ্র চট্টগ্রাম তথা বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হবে। মহান স্বাধীনতা সংগ্রামে ২৬শে মার্চ এই চান্দগাঁওয়ের কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে এম এ হান্নান বঙ্গবন্ধুর পক্ষে বাঙালির স্বাধীনতা ঘোষণা করেছেন। যতদিন বাংলাদেশ থাকবে ততদিন কালুরঘাট ইতিহাসে নমস্য হয়ে থাকবে।  সভায় কমান্ডার নাজমুল হাসান বিশ্ববিদ্যালয় প্রকল্পের নকশার পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপন করেন।এসময় নৌবাহিনী কমোডর মো. আসলাম , মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. শাহাবুদ্দিন, আবুল হাশেম, কাউন্সিলর কফিল উদ্দিন,মো.আজম,সাইফুদ্দিন খালেদ,ওয়াসা প্রকৌশলী মো. রেজাউল হাসান প্রমুখ স্ব স্ব অভিমত মতামত ব্যক্ত করেছেন।