ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম নারী মুক্তিযোদ্ধা ও প্রথম বিপ্লবী মহিলা শহীদ...

ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম নারী মুক্তিযোদ্ধা ও প্রথম বিপ্লবী মহিলা শহীদ ব্যক্তিত্ব।

63
SHARE

নিজস্ব প্রতিনিধি : আবদুর রহমান (সাকিব): প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদার যিনি প্রীতিলতা ওয়াদ্দেরনামেও পরিচিত জন্ম: ৫ ই মে, ১৯১১ মৃত্যু সেপ্টেম্বর ২৪, ১৯৩২ ডাকনাম রাণী, ছদ্মনাম ফুলতার, একজন বাঙালী ছিলেন, যিনি ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম নারী মুক্তিযোদ্ধা ও প্রথম বিপ্লবী মহিলা শহীদ ব্যক্তিত্ব।
ঐতিহাসিক ইউরোপিয়ান ক্লাব,পাহাড়তলি।
এই ক্লাবের সাইনবোর্ডে লেখা থাকতো কুকুর ও ভারতীয়দের প্রবেশ নিষেধ’
১৯৩০ সালের ১৮ ই এপ্রিল মাস্টারদা সূর্য সেনের নেতৃত্বে শুরু হয় চট্টগ্রাম যুব বিদ্রোহ। ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের সব অহংকার চূর্ণ করে চার দিন স্বাধীন ছিলো চট্টগ্রাম। ব্রিটিশ বিরোধী অান্দোলনের অগ্নি পুরুষ মাস্টারদা সূর্যসেনের নির্দেশে পাহাড়তলি এই ক্লাব অাক্রমনের দায়িত্ব পান বীর কণ্যা প্রীতিলতা।
১৯৩২ সালের ২৪ ই সেপ্টেম্বর রাত ১০:৪৫ মিনিটে প্রীতিলতার নেতৃত্বে ১৫ জনের বিপ্লবী দল পাহাড়তলি ‘র এই ইউরোপিয়ান ক্লাবে অাক্রমণ চালায়।প্রীতিলতা হুইসেল বাজিয়ে অাক্রমণের নির্দেশ দেয়।গুলি অার বোমার অাঘাতে পুরো ক্লাব কেঁপে উঠেছিলো।ইংরেজ অফিসাররা রিভলবার নিয়ে পাল্টা গুলি চালায়।মিসেস সুলিভান নামে একজন ইংরেজ নিহত হয়।অারো চারজন পুরুষ এবং সাতজন ইংরেজ মহিলা অাহত হয়।
অাক্রমণ শেষে বিপ্লবী দলের সাথে কিছুদুর ঐগিয়ে যান দলের নেতা প্রীতিলতা। তালপর গুলি বিদ্ধ অবস্হায় পটাশিয়াম সায়ানাইড পানে অাত্নহুতি দেন ব্রিটিশ বিরোধী প্রথম নারী শহীদ প্রীতিলতা। পাহাড়তলী ইউরোপীয় ক্লাব আক্রমণ শেষে পূর্বসিদ্বান্ত অনুযায়ী প্রীতিলতা পটাসিয়াম সায়ানাইড মুখে পুরে দেন। কালীকিংকর দে’র কাছে তিনি তাঁর রিভলবারটা দিয়ে আরো পটাশিয়াম সায়ানাইড চাইলে, কালীকিংকর তা প্রীতিলতার মুখের মধ্যে ঢেলে দেন। ইউরোপীয় ক্লাব আক্রমণে অংশ নেয়া অন্য বিপ্লবীদের দ্রুত স্থান ত্যাগ করার নির্দেশ দেন প্রীতিলতা। পটাসিয়াম সায়ানাইড খেয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়া প্রীতিলতাকে বিপ্লবী শ্রদ্ধা জানিয়ে সবাই স্থান ত্যাগ করে। পরদিন পুলিশ ক্লাব থেকে ১০০ গজ দূরে মৃতদেহ দেখে পরবর্তীতে প্রীতিলতাকে সনাক্ত করেন। তাঁর মৃতদেহ তল্লাশীর পর বিপ্লবী লিফলেট, অপারেশনের পরিকল্পনা, বিভলবারের গুলি, রামকৃষ্ণ বিশ্বাসের ছবি এবং একটা হুইসেল পাওয়া যায়। ময়না তদন্তের পর জানা যায় গুলির আঘাত তেমন গুরুতর ছিল না এবং পটাশিয়াম সায়ানাইড ছিল তাঁর মৃত্যুর কারণ।

সূত্র:উইকিপিডিয়া ফাইল।